বাংলাদেশের নদ-নদী (Rivers of Bangladesh)

Category: Bangladesh
Posted on: Wednesday, September 20, 2017

Share:

নদ-নদী

  • শাখা প্রশাখা সহ বাংলাদেশে নদ-নদী সংখ্যা ৭০০ না থাকলে ২৩০ টি।
  • বাংলাদেশের আন্ত:সীমান্ত নদী রয়েছে ৫৭ টি। এর মধ্যে ভারত বাংলাদেশে অভিন্ন নদীর সংখ্যা ৫৪টি এবং মায়ানমার বাংলাদেশ অভিন্ন নদী হচ্ছে তিনটি।
  • বাংলাদেশ ভারতকে বিভাজনকারী নদী হচ্ছে হাড়িয়াভাঙ্গা এবং বাংলাদেশ মায়ানমারকে বিভক্তিকারী নদী হচ্ছে নাফ।
  • বাংলাদেশের সব চেয়ে দীর্ঘতম নদী মেঘনা, সবচেয়ে প্রশস্ত নদী, মেঘনা এবং সবচেয়ে খরস্রোতা নদী কর্ণফুলী।
  • বাংলাদেশ হতে ভারতে প্রবেশকারী একমাত্র নদী কুলিক।
  • বাংলাদেশের প্রধান নদী বন্দর- নারায়ণগঞ্জ
  • নদ-২টি (ব্রহ্মপুত্র, কপোতাক্ষ)
  • উৎপত্তিস’লে মেঘনার নাম-বরাক নদী
  • নদী সমূহ যেভাবে প্রবাহিত- সর্পিল/বিনুনি গতিতে
  • ব্রহ্মপুত্রের প্রধান শাখা- যমুনা
  • তিস্তানদী বাংলাদেশে প্রবেশ করছে নীলফামারী জেলার মধ্য দিয়ে ১৭৮৭ সালে ভূমিকম্পের কারণে ব্রহ্মপুত্র বিভক্ত হয়ে যমুনা নদীর সৃষ্টি পদ্মা- গঙ্গা নদীর শাখা নদী
  • পদ্মা নদীর শাখা নদী- কপোতাক্ষ
  • যে নদী বাংলাদেশের ভেতরে দুভাবে বিভক্ত হয়ে কিছুদূর প্রবাহিত হয়ে পুনরায় মিলিত হয়- মেঘনা
  • মেঘনা নদী পতিত হয়- বঙ্গোপসাগরে
  • বাংলাবান্ধা যে নদীর তীরে অবস্থিত-মহানন্দা
  • ভূমিকম্পের কারণে ১৭৮৭ সালে যে নদীর স্রোত পরিবর্তন হয়ে যমুনা নদীতে পতিত হয়- পুরাতন ব্রাহ্মপুত্র
  • এক কিউসেক-প্রতি সেকেন্ডে ১ ঘনফুট পানির প্রবাহ
  • মংলা বন্দর-পশুর নদীর তীরে (বাগের হাট জেলায়)
  • চট্টগ্রাম বন্দর- কর্ণফুলি নদীর মোহনায়

বৈশিষ্ট্যপূর্ণ নদ-নদীঃ

  • যে নদীতে জোয়ার-ভাঁটা হয় না- গোমতী, কুমিল্লা
  • যে নদীতে পাশাপাশি দুই রং এর স্রোত দেখা যায়- যমুনা
  • বাংলাদেশের একমাত্র খরস্রোতা নদী- কর্ণফুলি
  • যে নদীতে বাঁধ দিয়ে কৃত্রিম হ্রদ তৈরী করা হয়েছে- কর্ণফুলি
  • প্রাকৃতিক মৎস প্রজনন ক্ষেত্র কোনটি?- হালদা নদী (চট্টগ্রাম)
  • বাংলাদেশে উৎপন্ন হয়ে বাংলাদেশেই সমাপ্ত নদী- সাংগু ও হালদা।
  • যে নদীর মানুষের নামে রাখা হয়েছে- রূপসা (রূপসালাল সাহার নামে)
  • সুরমা ও কুশিয়ারা মিলিত হয়ে নাম ধারণ করেছে- কালনি
  • নাফ নদীর দৈর্ঘ্য- ৫৬ কি.মি
  • দীর্ঘতম নদ- ব্রহ্মপুত্র
  • দীর্ঘতম নদী- মেঘনা
  • প্রশস্ততম নদী- মেঘনা
  • যমুনা নদীর পূর্বনাম ছিল- জোনাই
  • বাংলাদেশের গভীরতম নদী- মেঘনা।
  • বাংলাদেশের ক্ষুদ্রতম নদী- গোবরা (৪ কি.মি)